রিজুভিনাইজেশন বা উজ্জীবিতকরণ

ইন্টারকোঅপারেশন - এএফআইপি প্রকল্পের সৌজন্যে আপডেটকৃত

                  

 

এটা হচ্ছে এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে অবহেলিত বা বয়স্ক গাছ, যে গাছে যে ফল ধরেনা সেগুলোকে ফল উৎপাদনে সক্ষম করে তোলার পদ্ধতি।
রিজুভিনেটিং করার পদ্ধতিসমূহ নিম্নরুপঃ

বয়স্ক গাছকে ফল/সায়ন উৎপাদনক্ষম করার পদ্ধতি
গাছ পাতলাকরণ (ডাল পালা ছাঁটাই)
ছড়িয়ে ছিটিয়ে গাছ লাগালে গাছ থেকে গাছের দূরত্ব অপর্যাপ্ত হয়ে যায়। ফলে ফলন কমে যায় এবং পোকা-মাকড় ও রোগের প্রাদুর্ভাব বেশি হয়। এই সমস্যা দূর করার জন্য ন্যূনতম মাত্রায় গাছ পাতলা করতে হবে যাতে করে পর্যাপ্ত আলো-বাতাস বাগানে প্রবেশ করতে পারে। অতিরিক্ত এবং ভিতরের বয়স্ক ডালপালা পাতলা করে ও উৎপাদন বাড়ানো যায়।

ক্রটিপূর্ণ কান্ডের অপসারণ
পোকা এবং রোগাক্রান্ত, মৃত এবং ক্ষতিগ্রস্থ শাখাসমূহ অপসারণ করা উচিত। এর ফলে নতুন শাখা প্রশাখা বৃদ্ধি এবং ফুল ও ফল ধারণের মাধ্যমে গাছ সজীব হয়।

টপ ওয়ার্কিং
অনাকাঙ্খিত বা আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ গাছের উপরের অংশ অপসারণ করে কাঙ্খিত জাতের উৎপাদনক্ষম ভাল গুণাগুণ সম্পন্ন গাছে পরিণত করাকে টপ ওয়ার্কিং বলে। এ পদ্ধতিতে শাখাসমূহ কেটে ফেলা হয় এবং তা থেকে যে নতুন ডালপালা গজায় তাতে কাঙ্খিত জাতের সায়ন জোড়া লাগানো হয়। গুড়ি অথবা শাখা সমূহ ৪ ইঞ্চি ব্যাসের সমান করে কাটা হয়। লম্বা, সরু খাঁজযুক্ত সায়ন তৈরি করা হয়।

আদিজোড় (রুটস্টক) এক ইঞ্চি ব্যাসের আকার ধারণ করলে এতে ক্লেফট গ্রাফটিং বেশি কার্যকরী হয়। এতে সায়ন নতুন শাখায় ভিতরে ঢুকে যাওয়ায় আদিজোড় এবং সায়নের ক্যাম্বিয়াম স্তর তাড়াতাড়ি জোড়া লাগে।